বার বার সরকারি চাকরির পরীক্ষায় আসা দিবস সমূহ | কোন তারিখে কোন দিবস পালিত হয়

সরকারি চাকরির পরীক্ষায় আসা দিবস সমূহ 


বরাবরই আমরা সরকারি কিংবা বেসরকারি চাকরির পরীক্ষায় সহজ কিছু প্রশ্ন নিয়ে দ্বিধায় পড়ে যাই। কিছু প্রশ্নকে তো অবহেলায় কখনো গুরুত্বই দেওয়া হয়না। ঠিক তেমনি একটি বিষয় হচ্ছে দিবস। যে সকল আন্তর্জাতিক ও জাতীয় দিবস বাংলাদেশে উদযাপন করা হয়, সেগুলোই এই টপিকের বিষয় বস্তু। 

তাহলে চলুন দেখে নেওয়া যাক - " বার বার সরকারি চাকরির পরীক্ষায় আসা দিবস সমূহ " তথা " কোন তারিখে কোন দিবস পালিত হয় "।


• ১৯৭১ সালের ২৬ শে মার্চ কি বার ছিল? শুক্রবার।

• ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর কি বার ছিল? বৃহস্পতিবার।

• বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের প্রথম সেনাপতি কে ছিলেন? এম এ জি ওসমানী। 

• বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণাপত্র জারি করা হয় কবে? ১৯৭১ সালের ১০ এপ্রিল।

• বাংলাদেশের প্রথম অস্থায়ী প্রেসিডেন্ট কে ছিলেন? সৈয়দ নজরুল ইসলাম।

• ‘এ দেশের মানুষ চাই না,মাটি চাই’ কার উক্তি? ইয়াহিয়া খানের।

• বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় ঢাকা শহর কোন সেক্টরের অধীনে ছিল? দুই ও তিন নং সেক্টর।

• বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে একজন ইতালির নাগরিক মৃত্যুবরণ করেন। তার নাম কি? মাদার মারিও ভেরেনজি।

• মুক্তিযুদ্ধকালীন শেখ মুজিবুর রহমান কে কোথায় বন্দী করে রাখা হয়েছিল? পাকিস্তানের করাচি শহরের মিয়াউয়ালি কারাগারে।

• ভারত- বাংলাদেশ যৌথ বাহিনী কবে ঘটিত হয়? ২১ নভেম্বর, ১৯৭১।

• কোন জেলা প্রথম শত্রুমুক্ত হয়? যশোর

• দেশের একমাত্র পাহাড়ি অধিবাসী বীর বিক্রম কে? ইউ কে চিং।

• তারামন বিবি কোন সেক্টরে যুদ্ধ করেন?১১ নং (ময়মনসিংহ ও টাঙ্গাইল জেলায় )।

• স্বাধীনতা যুদ্ধে বীর উত্তম উপাধি লাভ করেন কতজন? ৬৮ জন (বীর বিক্রম-১৭৫ জন; বীর প্রতীক- ৪২৬ জন)।

• বাংলাদেশের কোন সেক্টরে নিয়মিত কমান্ডার ছিলনা? ১০ নং।

• বাংলাদেশ কে স্বীকৃতি দানকারী প্রথম আমেরিকার দেশ কোনটি? কানাডা।

• বাংলাদেশ কে স্বীকৃতি দানকারী প্রথম আরব দেশ কোনটি? ইরাক (৮ জুলাই, ১৯৭২)।

• ‘সেপ্টেম্বর অন যশোর রোড’ কবিতাটি কত লাইনের? ১৫১ লাইনের (রচয়িতা এলেনগিন্সবার্গ)

চাকরির পরীক্ষায় আসা গুরুত্বপূর্ণ দিবস সমূহ

জানুয়ারি 

১০ জানুয়ারি হচ্ছে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস।

১৯ জানুয়ারি হচ্ছে জাতীয় শিক্ষক দিবস।

২০ জানুয়ারি হচ্ছে শহীদ আসাদ দিবস।

আরো পড়ুনঃ প্রাইমারী শিক্ষক নিয়োগের যোগ্যতা 

ফেব্রুয়ারি

১৪ ফেব্রুয়ারি হচ্ছে সুন্দরবন দিবস।

২১ ফেব্রুয়ারি হচ্ছে শহীদ দিবস।

২৮ ফেব্রুয়ারি হচ্ছে জাতীয় ডায়াবেটিস সচেতনতা দিবস।

মার্চ

২ মার্চ হচ্ছে জাতীয় পতাকা দিবস।

৮ মার্চ হচ্ছে বিশ্ব নারী দিবস।

১৭ মার্চ হচ্ছে শিশু দিবস।

২১ মার্চ হচ্ছে বিশ্ব বৈষম্য দিবস।

২২ মার্চ হচ্ছে বিশ্ব পানি দিবস।

২৩ মার্চ হচ্ছে বিশ্ব আবহাওয়া দিবস।

২৪ মার্চ হচ্ছে বিশ্ব যক্ষা দিবস।

২৬ মার্চ হচ্ছে স্বাধীনতা দিবস।

৩১ মার্চ হচ্ছে জাতীয় দুর্যোগ প্রস্তুতি দিবস।

এপ্রিল

২ এপ্রিল হচ্ছে জাতীয় প্রতিবন্ধী দিবস।

৭ এপ্রিল হচ্ছে বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস।

১৭ এপ্রিল হচ্ছে মুজিবনগর দিবস।

২৩ এপ্রিল হচ্ছে বিশ্ব গ্রন্থ ও গ্রন্থস্বত্ব দিবস।

২৬ এপ্রিল হচ্ছে বিশ্ব মেধা সম্পদ দিবস।

আরো পড়ুনঃ প্রাইমারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার সিলেবাস 

মে

১ মে হচ্ছে মহান মে দিবস।

৩ মে হচ্ছে বিশ্ব সংবাদপত্র স্বাধীনতা দিবস।

৪ মে হচ্ছে আন্তর্জাতিক শিশু দিবস।

১৩ মে হচ্ছে বিশ্ব মা দিবস।

১৫ মে হচ্ছে বিশ্ব পরিবার দিবস।

১৬ মে হচ্ছে ফারাক্কা দিবস।

১৭ মে হচ্ছে বিশ্ব টেলিযোগাযোগ দিবস।

২২ মে হচ্ছে বিশ্ব জীববৈচিত্র দিবস।

২৫ মে হচ্ছে কাজী নজরুল ইসলাম-এর জন্মবার্ষিকী।

২৮ মে হচ্ছে নিরাপদ মাতৃত্ব দিবস।

২৯ মে হচ্ছে বিশ্ব জাতিসংঘ শান্তি রক্ষা দিবস।

৩১ মে হচ্ছে বিশ্ব তামাক মুক্ত দিবস।

জুন

৫ জুন হচ্ছে বিশ্ব পরিবেশ দিবস।

৭ জুন হচ্ছে ছয় দফা দিবস।

১২ জুন হচ্ছে বিশ্ব শিশুশ্রম প্রতিরোধ দিবস।

১৩ জুন হচ্ছে নারী উত্ত্যক্তকরণ প্রতিরোধ দিবস বা ইভ টীজিং প্রতিরোধ দিবস।

২০ জুন হচ্ছে বিশ্ব উদ্বাস্তু দিবস।

২১ জুন হচ্ছে বিশ্ব সংগীত দিবস।

২৩ জুন হচ্ছে পলাশী দিবস।

জুলাই

১ জুলাই হচ্ছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় দিবস।

৩ জুলাই হচ্ছে জন্ম নিবন্ধন দিবস।

৭ জুলাই হচ্ছে বিশ্ব সমবায় দিবস।

১০ জুলাই হচ্ছে মুসক দিবস।

১১ জুলাই হচ্ছে বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস।

১৮ জুলাই হচ্ছে ম্যান্ডেলা দিবস।

২৯ জুলাই হচ্ছে বিশ্ব বাঘ দিবস।

আগস্ট

৬ আগস্ট হচ্ছে হিরোসিমা দিবস।

৯ আগস্ট হচ্ছে বিশ্ব আদিবাসী দিবস ও নাগাসাকি দিবস। 

আগস্ট এর প্রথম রবিবার হচ্ছে বিশ্ব বন্ধুদিবস।

১২ আগস্ট হচ্ছে বিশ্ব যুব দিবস।

১৫ আগস্ট হচ্ছে জাতীয় শোক দিবস।

সেপ্টেম্বর 

৮ সেপ্টেম্বর হচ্ছে বিশ্ব স্বাক্ষরতা / নিরক্ষরতা দিবস।

১৫ সেপ্টেম্বর হচ্ছে জাতীয় আয়কর দিবস। সেপ্টেম্বর এর তৃতীয় মঙ্গলবার হচ্ছে বিশ্ব শান্তি দিবস।

১৭ সেপ্টেম্বর হচ্ছে মহান শিক্ষা দিবস।

অক্টোবর 

৫ অক্টোবর হচ্ছে শিক্ষক দিবস।

৯ অক্টোবর হচ্ছে বিশ্ব ডাক দিবস।

১৬ অক্টোবর হচ্ছে বিশ্ব খাদ্য দিবস।

২২ অক্টোবর হচ্ছে জাতীয় সড়ক নিরাপদ দিবস।

নভেম্বর 

৩ নভেম্বর হচ্ছে জেলহত্যা দিবস।

৪ নভেম্বর হচ্ছে সংবিধান দিবস।

৭ নভেম্বর হচ্ছে জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস।

১০ নভেম্বর হচ্ছে নূর হোসেন দিবস বা স্বৈরাচার বিরোধী দিবস ও মালাল দিবস।

২১ নভেম্বর হচ্ছে সশস্ত্রবাহিনী দিবস।

ডিসেম্বর 

১ ডিসেম্বর হচ্ছে মুক্তিযোদ্ধা দিবস ও বিস্ব এইডস দিবস।

৩ ডিসেম্বর হচ্ছে বিশ্ব প্রতিবন্ধী দিবস।

৬ ডিসেম্বর হচ্ছে স্বৈরাচার পতন দিবস বা সংবিধান সংরক্ষণ দিবস।

৯ ডিসেম্বর হচ্ছে রোকেয়া দিবস।

১০ ডিসেম্বর হচ্ছে বিশ্ব মানবাধিকার দিবস।

১৪ ডিসেম্বর হচ্ছে শহীদ বুদ্ধিজীবি দিবস।

১৬ ডিসেম্বর হচ্ছে বিজয় দিবস।

১৮ ডিসেম্বর হচ্ছে আন্তর্জাতিক অভিবাসী দিবস।


আজকের আর্টিকেলটি (বার বার সরকারি চাকরির পরীক্ষায় আসা দিবস সমূহ | কোন তারিখে কোন দিবস পালিত হয়) পছন্দ হলে শেয়ার করে সবাইকে জানিয়ে দেয়ার অনুরোধ রইলো। আর যদি আপনাদের মনে আরও কোনো প্রশ্ন থাকে, তবে তা নিচে কমেন্ট করেও জানাতে পারেন।

নবীনতর পূর্বতন