শ্রীমঙ্গলে বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশনে এক অজগর পঞ্চমবারের মতো ডিম দিয়েছে

শ্রীমঙ্গলে অজগর

অজগরটি রোববার সন্ধ্যা থেকে ডিম দেওয়া শুরু করে।ডিম দেওয়ার পর অজগরটি কুন্ডলী পাকিয়ে ডিমগুলোকে ঘিরে বসে আছে৷তবে সেবা ফাউন্ডেশনের ধারণা, অজগরটি ৩০ থেকে ৩৫টির মতো ডিম দিয়েছে।বন্যপ্রাণী সেবা ফাউন্ডেশন সূত্রে জানা যায়, এর আগে এই অজগরটি চারবার ডিম দিয়েছে। প্রতিবারই ডিমের সংখ্যা ৪০- এর কাছাকাছি ছিল।সেবা ফাউন্ডেশনের পরিচালক সজল দেব বলেন, ‘চারবারের মধ্যে একবার কোনো ডিম ফুটে বাচ্চা বের হয়নি। বাকি তিনবারের ডিম থেকে মোট ১০০ বাচ্চা ফুটে বের হয়। আমরা এগুলো লাউয়াছড়া বনে ফিরিয়ে দিয়েছি।

তিনি আরও বলেন ‘আগের ধারণা থেকে বলতে পারি, মোটামুটি ৬০ দিনে ডিম ফুটে বাচ্চা বের হবে। এর আগে কখনও ৫৮ দিনে, কখনও ৫৯ দিনে বাচ্চা বের হয়েছিল। মা অজগরকে যেন কেউ বিরক্ত করতে না পারে বা এটি নিজেকে অনিরাপদ মনে না করে তাই কাউকে সাপটির কাছে যেতে দেওয়া হচ্ছে না।’তবে সাপটি কুণ্ডলী পাকিয়ে ডিমগুলো ঢেকে রেখেছে। ডিমের ওপরে মাথা রেখে ডিমে তা দিচ্ছে। শরীরের ফাঁক দিয়ে একটু দেখা গেলেও পুরো ডিম দেখা যাচ্ছে না। তিনি জানান, ডিমগুলোর রং সাদা। রাজহাঁসের ডিমের মতো এর আকৃতি। খাঁচার ভেতরে স্ত্রী অজগরের সঙ্গী পুরুষ অজগর পাশে থেকে সতর্ক পাহারা দিচ্ছে।

তিনি জানান, ডিমের সংখ্যা ৩০-৩২ হবে। বনে-জঙ্গলে থাকলে অজগর সাধারণত মার্চ থেকে জুন মাসের মধ্যে ৫০-১০০টি ডিম দেয়। গর্ত, গুহা বা পুরোনো গাছের খোঁড়লে ডিম পাড়ে। হবিগঞ্জের বাহুবল উপজেলার সীমান্তের দিনারপুর পাহাড়ের একটি লেবুর বাগান থেকে উদ্ধার করা এই অজগর জুটি ১৯৯৯ সাল থেকে তাদের তত্ত্বাবধানে রয়েছে।

নবীনতর পূর্বতন