বাংলা অর্থ সহ তাশাহুদ দোয়া | তাশাহুদ এর ইতিহাস কি

 

মসজিদের নকশা 

তাশাহুদ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি দোয়া। নামাজ আদায়ের ক্ষেত্রে তাশাহুদ দোয়াটি আবশ্যিক। তাই, আমরা আজকে বাংলা অর্থ সহ তাশাহুদ শিখবো এবং তাশাহুদের ইতিহাস সম্পর্কে জানবো। 

তাশাহুদ দোয়া :

اَلتَّحِيَّاتُ لِلّٰهِ وَالصَّلَوَاتُ وَالطَّيِّبَاتُ، السَّلاَمُ عَلَيْكَ أَيُّهَا النَّبِيُّ وَرَحْمَةُ اللّٰهِ وَبَرَكَاتُهٗ، السَّلاَمُ عَلَيْنَا وَعَلٰى عِبَادِ اللّٰهِ الصَّالِحِيْنَ، أَشْهَدُ أَنْ لاَّ إِلٰهَ إِلاَّ اللّٰهُ وَأَشْهَدُ أَنَّ مُحَمَّدًا عَبْدُهٗ وَرَسُوْلُهٗ

তাশাহুদ দোয়ার বাংলা উচ্চারণ : 

আত্তাহিইয়াতু লিল্লাহি ওয়াস্‌ সালাওয়াতু ওয়াত্ ত্বাইয়িবাত। আসসালামু ‘আলায়কা আইয়ুহান নাবিইয়ু ওয়া রাহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহ্‌। আস্‌সালামু ‘আলায়না ওয়া ‘আলা ‘ইবাদিল্লাহিস্‌ সালিহীন। আশ্‌হাদু আল লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়া আশ্‌হাদু আন্না মুহাম্মাদান ‘আব্‌দু ওয়া রাসুলুহ্‌।

তাশাহুদ দোয়ার বাংলা অর্থ :

যাবতীয় সম্মান, যাবতীয় উপাসনা ও যাবতীয় পবিত্র বিষয় আল্লাহর জন্য। হে নবী! আপনার উপরে শান্তি বর্ষিত হউক এবং আল্লাহর অনুগ্রহ ও সমৃদ্ধি নাযিল হউক। শান্তি বর্ষিত হউক আমাদের উপরে ও আল্লাহর সৎকর্মশীল বান্দাগণের উপরে। আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি যে, আল্লাহ ব্যতীত কোনো উপাস্য নেই এবং আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি যে, মুহাম্মাদ তাঁর বান্দা ও রাসুল।

জামীল ইবন হাসান ও আব্দুর রহমান ইবন উমর (রা)……কাতাদা (রা) থেকে বর্ণিত, এ হাদীসটি আব্দুর রহমান (র) আবু মূসা আশ আরী (রা) থেকে বর্ণিত । রাসুলুল্লাহ (সা) আমাদের সামনে খূতবা দেন এবং তিনি আমাদের সমস্ত বিধান শিক্ষা দেন এবং আমাদের সালাত শেখান । এরপর বলেনঃ যখন তোমরা সালাত আদায় করবে এবং বৈঠকে বসবে তখন তোমাদের প্রথম কথা হবেঃ

   اَلتَّحِيَّاتُ ِللهِ وَالصَّلَوَاتُ وَالطَّيِّبَاتُ، السَّلاَمُ عَلَيْكَ أَيُّهَا النَّبِيُّ وَرَحْمَةُ اللهِ وَبَرَكَاتُهُ، السَّلاَمُ عَلَيْنَا وَعَلَى عِبَادِ اللهِ الصَّالِحِيْنَ، أَشْهَدُ أَنْ لاَّ إِلَهَ إِلاَّ اللهُ وَأَشْهَدُ أَنَّ مُحَمَّدًا عَبْدُهُ وَرَسُوْلُهُ

আবু বাকর ইবন আবু শায়বা (র) …. ইবন মাসঊদ (রাঃ) থেকে বর্ণিত যে, তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা) আমাকে তাশাহুদ শিক্ষা দিয়েছেন আমার হাত তাঁর হাতের মধ্যে রেখে যেমনিভাবে তিনি আমাকে কুরআনের সূরা শিক্ষা দিতেন।এবং তিনি অন্যান্য রাবীর তাশাহুদের ন্যায় বর্ণনা করেছেন। (সহীহ মুসলীম, হাদীস নং- ৭৮৪)

তাশাহুদ এর ইতিহাস :

তাশাহুদ এর একটি চমৎকার ইতিহাস আছে, যা নিশ্চিত ভাবেই আমাদের মনকে পুলকিত করবে।

তাশাহুদ আসলে আল্লাহর সাথে আমাদের মহানবী (সঃ) এর কথোপকথনের একটা অংশ, যা আমাদের মহানবী (সঃ) মিরাজ যাত্রার সময় হয়েছে মহান আল্লাহর সাথে ঘটেছে! আপনি হয়তো জেনে অবাক হবেন, মহানবী (সঃ) যখন আল্লাহর সাথে কথোপকথন শুরু করে তখন আল্লাহকে আসসালামু আলাইকুম বলেননি!

তাহলে কি বলেছিলেন?

আমরা মহান আল্লাহকে কখনোই বলতে পারব না যে,আল্লাহ আপনার উপর শান্তি বর্ষিত হউক। কারন,আল্লাহ নিজেই একমাত্র পৃথিবীর সকল শান্তির এবং রহমতের উৎপত্তিস্থল।

আসলে মহানবী (সঃ) আল্লাহকে উদেশ্য করে বলেছিলেন:

🔸আত্তাহিইয়া-তু লিল্লা-হি ওয়াছ ছালাওয়া - তু ওয়াত্ ত্বাইয়িবা -তু

অর্থঃ- যাবতীয় সম্মান,যাবতীয় উপাসনা ও যাবতীয় পবিত্র বিষয় আল্লাহর জন্য।

উওরে মহান আল্লাহ বলেন:

🔸আসসালা-মু'আলায়কা আইয়ুহান্নাবিয়ু ওয়া রহমাতুল্লা-হি ওয়া-বারাকাতুহু।

অর্থঃ- হে নবী,আপনার উপরে শান্তি বর্ষিত হউক এবং আল্লাহর অনুগ্রহ ও সমৃদ্ধি সমূহ নাযিল হউক।

এতে মহানবী (সঃ) বলেন:

🔸আসসালা-মু-আলায়না ওয়া আলা ইবাদিল্লা-হিছছালেহীন।

অর্থ:- আল্লাহর সমৃদ্ধি শান্তি বর্ষিত হউক আমাদের উপরে ও আল্লাহর সৎকর্মশীল বান্দাগণের উপরে।

মহান আল্লাহ এবং মহানবী (সঃ) এর এই কথোপকথন শুনে ফেরেস্তারা বলেন:

🔸আশহাদু আল লা-ইলাহা ইলল্লালাহু ওয়া আশহাদুআন্না মুহাম্মাদান আব্দুহু ওয়া রাসূলুহু।

অর্থ:- আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি যে,আল্লাহ ব্যতীত কোন উপাস্য নেই এবং আমি সাক্ষ্য দিচ্ছি যে,মুহাম্মাদ (সঃ) তার বান্দা ও রাসূল।

এখন আমি এবং আপনি তাশাহুদ এর গুরুত্ব এবং তাশাহুদ এর ইতিহাস জানতে পারলাম। এবার একটু চিন্তা করুন তো, এই লেখাটি যদি আপনার মাধ্যমে অন্যান্য মানুষেরাও জানে তাহলে তারাও এই দোয়ার গুরুত্ব বুঝতে পারবে।

নবীনতর পূর্বতন