আগাম বন্যা হতে পারে সিলেট বিভাগের সকল জেলায়

বন্যা

 সিলেট বিভাগের বৃহৎ এলাকা জুড়ে  আগাম বন্যার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।সীমান্তবর্তী ভারতীয় অঞ্চলগুলোতে টানা ভারী বৃষ্টিপাতের কারণে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে সিলেট, সুনামগঞ্জ, মৌলভীবাজার ও হবিগঞ্জ জেলা সহ  নেত্রকোনা জেলার বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

টানা ভারী বর্ষণের কারণে উজানি ঢলে আজ শনিবার সুরমা নদী, সারি নদী ও  গোয়াইনসহ বিভিন্ন নদীর পানি বিপদসীমা পার হতে যাচ্ছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের নদ-নদীর পরিস্থিতি ও পূর্বাভাসের প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানা যায়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, দেশের ভেতর এবং উজানে ভারতীয় সীমান্তে ভারী বৃষ্টির কারণে সিলেট ও নেত্রকোণা অঞ্চলের প্রধান নদ-নদীগুলোর পানি দ্রুত বাড়তে পারে।

আবহাওয়া সংস্থাগুলোর গাণিতিক মডেলভিত্তিক পূর্বাভাস অনুযায়ী, আগামী কয়েক ঘণ্টায় দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চল এবং ভারতের আসাম (বরাক অববাহিকা), মেঘালয় ও ত্রিপুরা প্রদেশের কিছু এলাকায় ভারী বৃষ্টিপাতের ফলে দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের আপার মেঘনা অববাহিকার প্রধান নদ-নদীগুলোর পানি বৃদ্ধি আগামীকাল পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে। 

জানা যায়, প্রধান নদীগুলোর মধ্যে সুরমা, কুশিয়ারা, ভোগাই-কংস, ধনু-বাউলাই, মনু, খোয়াই এসব নদীর পানি কয়েকটি পয়েন্টে অনিয়মিত হারে দ্রুত বাড়তে পারে। আগামীকাল পর্যন্ত দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে সুরমা নদীর পানি কানাইঘাট পয়েন্টে এবং সারিগোয়াইন নদীর পানি সারিঘাট পয়েন্টে বিপদসীমা অতিক্রম করতে পারে বলেও জানা যায়।

বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আরিফুজ্জামান ভূঁইয়া জানান, " ব্রহ্মপুত্র নদের পানি কমছে। অপরদিকে যমুনা নদীর পানি সমতল স্থিতিশীল আছে। উভয় নদীর পানির সমতল আগামীকাল পর্যন্ত স্থিতিশীল থাকতে পারে।" 

আবহাওয়া বিভাগ জানিয়েছে, পশ্চিম বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় আসানি লঘুচাপে পরিণত হয়েছে। তবে আজ ঢাকা, ময়মনসিংহ, খুলনা, বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের অনেক জায়গায় মাঝারি ধরনের বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

নবীনতর পূর্বতন