কুরবানির পশু জবাই করার দোয়া | কুরবানির পশু জবাই করার নিয়ম

কুরবানির গরু

 প্রতি বছর ঈদুল আজহা এর সময় আমরা সাধারণত কুরবানি দিই। সবাই নিজ নিজ সামর্থ অনুযায়ী উট,দুম্বা,গরু কিংবা খাসি কুরবানি দিয়ে থাকে। কুরবানি কবুল হওয়ার প্রধান ও প্রথম শর্ত হচ্ছে সহীহ নিয়ত। প্রত্যেক কুরবানির পশু জবাই করার জন্যে দোয়া পড়া জরুরি। 

কুরবানির পশু জবাই করার দোয়া :

إِنِّي وَجَّهْتُ وَجْهِيَ لِلَّذِي فَطَرَ السَّمَوَاتِ وَالْأَرْضَ حَنِيفًا، وَمَا أَنَا مِنَ الْمُشْرِكِينَ، إِنَّ صَلَاتِي، وَنُسُكِي، وَمَحْيَايَ، وَمَمَاتِي لِلَّهِ رَبِّ الْعَالَمِينَ، لَا شَرِيكَ لَهُ، وَبِذَلِكَ أُمِرْتُ، وَأَنَا أَوَّلُ الْمُسْلِمِينَ، اللَّهُمَّ مِنْكَ، وَلَكَ....بِسْمِ اللهِ اَللهُ اِكِبَر

কুরবানির পশু জবাই করার দোয়ার উচ্চারণ : 

ইন্নি ওয়াজ্জাহতু ওয়াজহিয়া লিল্লাজ ফাতারাস সামাওয়াতি ওয়ালআরদা হানীফাও ওয়ামা আনা মিনাল মুশরিকীন। ইন্না সালাতী ওয়ানুসুকী ওয়ামাহইয়ায়া ওয়ামামাতী লিল্লাহি রাব্বিল আলামীন। লা শারীকালাহু ওয়াবিজালিকা উমিরতু ওয়াআনা আওয়ালুল মুসলিমীন। আল্লাহুম্মা মিনকা ওয়ালাকা। বিসমিল্লাহি আল্লাহু আকবার।

কুরবানির পশু জবাই করার দোয়ার বাংলা অর্থ : 

নিশ্চয়ই আমি দৃঢ়ভাবে সেই মহান সত্তার অভিমুখী হলাম, যিনি আসমান ও জমিন সৃষ্টি করেছেন। আমি মুশরিকদের অন্তর্গত নই। নিশ্চয়ই আমার নামাজ, আমার কোরবানি, আমার জীবন ও আমার মরণ—সবই বিশ্ব প্রতিপালক মহান আল্লাহর জন্য নিবেদিত। তাঁর কোনো শরিক নেই। আমি এ কাজের জন্য আদিষ্ট হয়েছি। আর আমি আত্মসমর্পণকারীদের একজন। আল্লাহর নামে, আল্লাহ সবচেয়ে মহান। (সুনানে আবু দাউদ, হাদীস নং-২৭৯৫, সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদীস নং-৩১২১)

পুরো দোয়া না পারলে অন্তত "বিসমিল্লাহি আল্লাহু আকবার" বলে কুরবানী করলে চলবে। তবে আল্লাহর নাম ছাড়া কোনো ভাবেই কুরবানি জায়েজ হবে না। 

যার ওপর আল্লাহর নাম (বিসমিল্লাহ) উচ্চারণ করা হয়েছে তা থেকে তোমরা আহার করো।’ (সূরা: আনয়াম, আয়াত: ১১৮)।

হাদিসে এসেছে- রাসূলুল্লাহ (সা.) দুটি শিংওয়ালা ভেড়া জবাই করলেন, তখন ‘বিসমিল্লাহ’ ও আল্লাহু আকবার’ বললেন। (দারিমি, আসসুনান : ১৯৮৮)।

আজকের আর্টিকেলটি (কুরবানির পশু জবাই করার দোয়া) পছন্দ হলে শেয়ার করে সবাইকে জানিয়ে দেয়ার অনুরোধ রইলো। আর যদি আপনাদের মনে আরও কোনো প্রশ্ন থাকে, তবে তা নিচে কমেন্ট করেও জানাতে পারেন।

নবীনতর পূর্বতন